ঐকশ্রী প্রকল্প কি? আবেদন প্রক্রিয়া, সুবিধা | Aikyashri Prakalpa Details in Bengali

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি কন্যাশ্রী, যুবশ্রী ইত্যাদি বিভিন্ন আর্থিক সুবিধার মতো ঐকশ্রী প্রকল্প চালু করেছেন। বাংলার সংখ্যালঘু সম্প্রদায় যেমন বৌদ্ধ, শিখ, জৈন, মুসলিম ইত্যাদি ছাত্রছাত্রীদের বিশেষ বৃত্তি বা স্কলারশিপ প্রদান করা হয়।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার শিক্ষার মান বৃদ্ধি ও সকল শ্রেণীর মানুষকে শিক্ষিত করার জন্য ২০২০ সালে এই প্রকল্প চালু করেন। ঐকশ্রী প্রকল্প একটি সামাজিক উন্নয়নমূলক প্রকল্প। বাংলার ঐক্য ও সংহতি রক্ষার জন্য আর্থিক দিক থেকে পিছিয়ে পড়া বাঙালি সংখ্যালঘু সমাজের ছাত্রছাত্রীদের আর্থিকভাবে সুবিধা করা হলো ঐকশ্রী প্রকল্পের লক্ষ্য। এটি West Bengal Minority Development and Finance Corporation এর অন্তর্গত।

ঐকশ্রী প্রকল্প কি? (What is Aikyashri Prakalpa in Bengali)

বাংলায় দরিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী এবং আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া সমাজের সংখ্যালঘু ছাত্র-ছাত্রীরা অর্থাৎ মুসলিম, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ, জৈন ইত্যাদি সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার জন্য আর্থিক সহায়তা এবং পড়ার প্রতি আগ্রহ বাড়ানোর জন্য যে প্রকল্পের সূচনা করা হয়েছে তা ঐকশ্রী প্রকল্প নামে পরিচিত।

ঐকশ্রী প্রকল্প একনজরে

প্রকল্পের নামঐকশ্রী প্রকল্প
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
সাল2020
উদ্যোক্তামমতা ব্যানার্জি
দপ্তরসংখ্যালঘু দপ্তর
E-mail  [email protected]
Helpline number033-4047468

ঐকশ্রী প্রকল্পের উদ্দেশ্য

  • বাংলার পিছিয়ে পড়া সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে শিক্ষার হার বাড়ানো।
  • দরিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী ছাত্র-ছাত্রীদের আর্থিক সাহায্য করা।
  • ঐকশ্রী প্রকল্পের মাধ্যমে টাকা পেয়ে অ্যাডভান্স কোর্স করার পর শিক্ষার্থীদের স্বনির্ভর করে তোলা।

ঐকশ্রী প্রকল্পের সুবিধা

  1. রাজ্যের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ছাত্রছাত্রীদের সাক্ষরতার হার বাড়বে।
  2. যারা টাকার জন্য ভালো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি থেকে বঞ্চিত হতো তারা ভালো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়ার সুবিধা পাবে।
  3. পড়াশোনার জন্য পড়ুয়াদের যাতে অন্য কিছু উপর নির্ভর করতে না হয় সরকার সেটিদিকে নজর রাখবে।
  4. সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মহিলারা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হবে।
  5. যে সকল ছাত্র-ছাত্রী পড়াশোনার জন্য স্কুলে যেত না তারা এই সুবিধা পেয়ে স্কুল যাওয়ার প্রতি আগ্রহী হবে।

ঐকশ্রী প্রকল্পের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • কাস্ট সার্টিফিকেট
  • আধার কার্ড
  • ইনকাম সার্টিফিকেট
  • বাসিন্দা সার্টিফিকেট
  • স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটিতে ভর্তির রশিদ
  • মার্কশিট
  • পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ফটো
  • ব্যাংক এর পাশ বই

ঐকশ্রী প্রকল্পের প্রকারভেদ

ঐকশ্রী প্রকল্পকে সাধারণত তিন ভাগে ভাগ করা যায়-

1. প্রিমেট্রিক স্কলারশিপ (Prematric Scholarship)

ক্লাস

  • প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র ছাত্রীরা ১১০০ টাকা করে পাবে।
  • ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্রছাত্রীরা ১১০০ থেকে ৪৪০০ টাকা পর্যন্ত সরকারি সুবিধা পাবে।

যোগ্যতা

  • প্রিম্যাট্রিক স্কলারশিপ এ ছাত্রছাত্রীদের ৫০% এর বেশি নাম্বার লাগবে তবে ৫০% নম্বর থাকা বাধ্যতামূলক নয়।
  • বার্ষিক ইনকাম ২ লক্ষ টাকার কম হতে হবে।
  • ছাত্র-ছাত্রীদের পশ্চিমবঙ্গের কোন স্থায়ী প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করতে হবে।
  • আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

2.পোস্ট মেট্রিক স্কলারশিপ (Post Matric Scholarship)

ক্লাস

  • একাদশ থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীরা এই প্রকল্পের আওতায় বছরে ৭৭০০ টাকা থেকে ১৫২০০ টাকা পর্যন্ত পাবে
  • দ্বাদশ শ্রেণী থেকে B.A, M.A অর্থাৎ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা ১৫ হাজার থেকে ১৬৫০০ টাকা পর্যন্ত কলারশিপ পেতে পারে।

যোগ্যতা

  • পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হবে।
  • বছরে পারিবারিক আয় ২.৫ লক্ষ টাকার মধ্যে হতে হবে।
  • বছরের শেষ পরীক্ষায় ৫০% নাম্বার পেতে হবে।
  • সরকারি যেকোনো স্কুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করতে হবে।

3.মেরিট কাম-মিনস স্কলারশিপ (Merit cum-means Scholarship)

ক্লাস

Advance কোর্স যেমন মেডিক্যাল, ইঞ্জিনিয়ার, ম্যানেজমেন্ট, আইন কোর্সের জন্য ২২ হাজার থেকে ৩৩ হাজার টাকা পর্যন্ত স্কলারশিপ পাওয়া যাবে।

যোগ্যতা

  • পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
  • পেশাগত কোর্সে ভর্তি হতে হবে।
  • বছরে পারিবারিক আয় ২.৫ লক্ষ টাকার মধ্যে হতে হবে।
  • পশ্চিমবঙ্গ অথবা দেশের যেকোনো ইনস্টিটিউট থেকে পড়াশোনা করলে এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

আবেদন পদ্ধতি

ঐক্যশ্রী প্রকল্পের জন্য সাধারণত অনলাইন এবং অফলাইন যেকোনো মাধ্যমে আবেদন করতে পারেন। আবেদনের জন্য আপনাকে উপরের সমস্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে।

আপনি যখন অনলাইন অথবা অফলাইনে আবেদন করবেন প্রথমবার, আপনাকে ফ্রেশ (Fresh) করে আবেদন করতে হবে এবং আবেদনের পর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র স্থানীয় প্রশাসনিক কেন্দ্র, আপনি যে স্কুল, কলেজ বা ইন্সটিটিউশনে পড়াশুনা করছেন সেখানে অথবা আপনার এলাকার দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে জমা করতে পারেন।

তারপর আপনি যখন প্রথম বারের টাকা আপনার নিজস্ব একাউন্টে পাবেন, তারপর আপনি অনলাইন থেকে আপনার স্কলারশিপের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার দিয়ে পুনরায় রিনিউয়াল (Renewal) করবেন এবং প্রতি বছর আপনি টাকা পেতে থাকবেন।

সবশেষে,

আজকের এই প্রতিবেদনে পশ্চিমবঙ্গের ঐকশ্রী প্রকল্প সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনিও যদি এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে চান তাহলে উপরে দেওয়া পদ্ধতিটি অনুসরন করে খুব সহজেই আবেদন করতে পারবেন।

রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্র সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প বা স্কিম, সরকারি বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা, স্টুডেন্ট স্কলারশিপ সম্পর্কে নিয়মিত আপডেট পেতে চাইলে আমাদের Wbprakalpa.com নিয়মিত ভিজিট করুন।