কর্মই ধর্ম প্রকল্প: ২ লক্ষ বেকার যুবক-যুবতী সুবিধা পাবে | Karmai Dharma Prakalpa 2022

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক সকল শেনির মানুষদের জন্য বিভিন্ন প্রকল্প চালু করেছেন। এইবার রাজ্যের দুই লক্ষ বেকার যুবক-যুবতীদের জন্য কর্মই ধর্ম (Karmai Dharma Prakalpa) নামের নতুন এক প্রকল্প চালু করলেন।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই প্রকল্পের আওতায় রাজ্যের ছেলে-মেয়ে যারা বেকার তাদেরকে আসলে কি সুবিধা দেওয়া হবে। আজকের এই প্রতিবেদনে কর্মই ধর্ম প্রকল্পের সুবিধা, এতে কিভাবে আবেদন করা যাবে এবং কিভাবে আবেদন করতে হবে তা বিস্তারে জানানো হয়েছে।

আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-এর যে চরম জনপ্রিয়তা তা মূলত বিভিন্ন ধরনের জনকল্যাণমূলক প্রকল্প চালু করার কারনেই বেশি হয়েছে। এতে তেমন দ্বিমত নেই।

স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী, মহিলা, বয়স্ক ব্যাক্তিদের জন্য রাজ্যে বিভিন্ন প্রকল্প চালু রয়েছে। এইবার রাজ্যের বেকার যুবক-যুবতীদের জন্যও নতুন এক প্রকল্প চালু করা হলো যার নাম দেওয়া হয়েছে কর্মই ধর্ম প্রকল্প (Karmai Dharma Scheme)

Karmai Dharma Prakalpa 2022

কর্মই ধর্ম প্রকল্প কি? (What is Karmai Dharma Scheme in Bengali)

রাজ্যের বেকার ছেলে-মেয়ে যাদেরকে কাজের জন্য এক জায়গায় থেকে অন্য জায়গায় যেতে হয়। অর্থাৎ তাদেরকে জীবিকা নির্বাহের জন্য বাড়ির বাইরে যেতেই হয়। সে হোক নিজের ব্যবসা করার জন্য। তাদেরকে এই প্রকল্পের মাধ্যমে মোটর সাইকেল বা স্কুটি কেনার জন্য অল্প সুদে ঋন দেওয়া হবে। এই ঋন নিকটবর্তী কোনো সমবায় ব্যাংক থেকে খুব সহজেই পাওয়া যাবে। তবে এই কর্মই ধর্ম প্রকল্পের আওতায় টাকা নেওয়ার জন্য আলাদা করে আবেদন করতে হবে।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের উদ্দেশ্য

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মাধ্যমে চালু করা এই কর্মই ধর্ম প্রকল্পের কয়েকটি উদ্দেশ্য রয়েছে-

(1) কর্মই ধর্মই প্রকল্পকে রাজ্য সরকার একটি স্বরোজগার যোজনা হিসেবে চালু করতে চেয়েছে।

(2) রাজ্যের বেকার যুবক-যুবতীদের কাজের জন্য একটি করে মোটর সাইকেল প্রদানে সাহায্য করা।

(3) আর্থিক সহায়তা সরাসরি আবেদনকারীদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে পাঠানো।

(4) একজন বেকার যুবক ব্যাক্তি যদি তার নিজস্ব ব্যবসা চালু করতে চাই তাহলে তার দরকারি বাইক কেনার টাকা এই প্রকল্পের মাধ্যমে পেয়ে যাবে।

(5) এই প্রকল্প বেকার যুবকদের স্বরোজগার বানিয়ে নিজের পরিবারের ভরনপোষনের প্রয়োজন মেটাতে সাহায্য করবে।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের জন্য যোগ্যতা

(1) আবেদনকারীকে অবশ্যই পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।

(2) আবেদনকারীকে অবশ্যই বেকার হতে হবে এবং তার যেকোনো কাজের দরকার থাকতে হবে।

(3) এই প্রকল্পের সুবিধা শুধুমাত্র রাজ্যের বেকারদের দেওয়া হবে। যাদের যোগ্যতা মাধ্যমিক অথবা উচ্চমাধ্যমিক পাশ।

(4) একজন বেকার যুবক বা যুবতী ঠিক কি কারনে বাইক বা স্কুটি কিনতে চাইছে তার সঠিক প্রমান দেখাতে হবে।

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের সুবিধা

কর্মই ধর্ম প্রকল্পের প্রধান সুবিধা হলো, রাজ্যের ২ লক্ষ বেকার যুবক-যুবতীরা তাদের জীবিকা নির্বাহের প্রয়োজনে বাইক বা স্কুটি কেনার জন্য অল্প সুদের ব্যবধানে এবং খুব সহজেই ঋণ নিতে পারবে। এই টাকা দেওয়া হবে কো-অপারেটিভ ব্যাংক বা সমবায় ব্যাংক এর মাধ্যমে।

আমরা অনেক সময়েই দেখি বন্ধন ব্যাংকের লোনের টাকা কালেক্ট করতে আসা ব্যাংকের কর্মচারীদের নিজস্ব মোটর সাইকেল আছে তাই না। নিজের মোটর সাইকেল না থাকলে একজন বেকার যুবক বা যুবতীদের বন্ধন ব্যাংকের এই চাকরি দেওয়া হয়না

এক্ষেত্রে যারা বন্ধন ব্যাংকের চাকরি করতে চাই অথচ তাদের নিজস্ব মোটর সাইকেল নেই তারাও চাইলে এই প্রকল্পের আওতায় মোটর সাইকেল কেনার টাকা নেওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবে।

কর্ম ধর্মই প্রকল্পের আবেদন প্রক্রিয়া (Karmai Dharma Application Process)

গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পৌরসভা অফিস থেকেই এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারা যাবে।

আপনি যদি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস থেকে কর্মই ধর্ম প্রকল্পের ফর্ম তুলে তা ফিল আপ করে দরকারি নথিপত্র জুড়ে পঞ্চায়েত অফিসে জমা দিতে হবে।

আর আপনি যদি পৌরসভা এলাকার বাসিন্দা হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে পৌরসভা অফিস থেকে কর্মই ধর্ম প্রকল্পের ফর্ম তুলে তা ফিল আপ করে দরকারি নথিপত্র জুড়ে পৌরসভার অফিসে জমা করতে হবে।

👉 সরকারি প্রকল্প, সরকারি সুবিধার নতুন নতুন তথ্য মিস না করতে চাইলে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে Join হয়ে থাকুন

🔥 এগুলোও পড়ুন 👇👇

👉 মানবিক পেনশন প্রকল্পে ,মাসে ১০০০ টাকা ভাতা

👉 স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন

👉 কৃষক বন্ধু প্রকল্প- দুই কিস্তিতে ১০ হাজার টাকা