স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন। কিভাবে পাবেন? জানুন | Student Credit Card Application in Bengali

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বাংলার আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া ছাত্রছাত্রীদের কথা মাথায় রেখে 2021 সালের ২৬ শে জুন মন্ত্রিসভায় থেকে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড (Student Credit Card) প্রকল্পটি পাস করেন এবং ৩০ শে জুন থেকে সরকারি ভাবে কার্যক্রম শুরু হয়।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড প্রকল্পটি একটি বৃত্তিমূলক প্রকল্প। এই প্রকল্পটি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের শিক্ষা দপ্তর থেকে পরিচালিত করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। আর এই কার্ডের মাধ্যমে দেশ-বিদেশ থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে এবং ছাত্র-ছাত্রীরা নিজের পায়ে স্বনির্ভর হয়ে উঠবে।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড কি, কিভাবে আবেদন করতে হবে ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত জানতে আজকের প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ পড়ুন।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড কি? (What is Student Credit Card in Bengali)

পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত ছাত্র ছাত্রী, দেশ বিদেশের নির্দিষ্ট ইন্সটিটিউট থেকে উচ্চ শিক্ষার জন্য পড়াশোনা করছে রাজ্য সরকার তাদের স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন দেবে। দীর্ঘ ১৫ বছরের মধ্যে ঋণ পরিশোধ করতে হবে এবং সুদের পরিমাণ সর্বনিম্ন ৪ শতাংশ। এছাড়া চার লক্ষ টাকার কম সুদ হলে রাজ্য সরকার তা বহন করবেন।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড একনজরে

প্রকল্পের নামস্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড
রাজ্যপশ্চিমবঙ্গ
দপ্তরশিক্ষা দপ্তর
উদ্বোধনমমতা ব্যানার্জি
সাল২০২১ সালে ৩০ জুন
E-mail[email protected] / [email protected]
হেল্পলাইন1800 1028014
ওয়েবসাইটhttps://wbscc.wb.gov.in/

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের উদ্দেশ্য

  • বাংলার সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলা।
  • যে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রী টাকার অভাবে উচ্চশিক্ষা থেকে বঞ্চিত হতো, তাদের পাশে দাঁড়ানো।
  • সরকারের স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা পেয়ে দেশ-বিদেশে চাকরির সুযোগ পাবে।
  • স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের লোন পরিশোধের দীর্ঘ সময় পাওয়ার ফলে কারণ নিজের পায়ে স্বনির্ভর হওয়ার সুযোগ পাচ্ছে।
  • বাংলার সমস্ত নাগরিক ধনী-দরিদ্র সকলে এই সুবিধা পেয়ে বাংলাকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে রাজ্য সরকার মনে করছেন।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা

  1. পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত ছাত্র-ছাত্রী দেশ-বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য রাজ্য সরকার ঋণ প্রদান করবে।
  2. রাজ্য সরকার ছাত্র-ছাত্রীদের সর্বনিম্ন বার্ষিক ৪% সুদের হারে ঋণ দেবে।
  3. ছাত্র-ছাত্রীদের সরকার একটি জীবন বীমা করে দেবে।
  4. বিশেষ করে রাজ্যের পিছিয়ে পড়া ছাত্রছাত্রীদের আর্থিক কারণে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার জন্য সরকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প।
  5. সরকার যে লোন দেবে, তার সমস্ত দায়বদ্ধতা রাজ্য সরকার বহন করবে।
  6. এছাড়া এই লোন পরিশোধের জন্য সর্বাধিক 15 বছর পর্যন্ত সময় পাবে।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা কারা কারা পাবে

  • পশ্চিমবঙ্গের ১০ বছরের বেশি স্থায়ী নাগরিক হতে হবে।
  • প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় যেমন ইউপিএসসি, ডব্লু বি সি এস, পি এস সি, এস এস সি ইত্যাদি ইত্যাদি চাকরির পড়াশোনা করার জন্য আবেদনকারীরা এর সুবিধা পাবে।
  • এছাড়া উচ্চশিক্ষার জন্য যেসব ছাত্র-ছাত্রী দেশ-বিদেশে স্বীকৃত কলেজ বা ইউনিভার্সিটি থেকে ডিপ্লোমা, পেশাগত, ডক্টরেট, স্নাতকোত্তর, স্নাতক ইত্যাদি সমস্ত পাঠরত ছাত্র ছাত্রী উচ্চশিক্ষার উপযুক্ত প্রমাণ পত্র থাকলে এই সুবিধা পাবেন।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের শিক্ষাগত যোগ্যতা

সাধারণত স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড পশ্চিমবঙ্গের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। এছাড়া স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের লোনের সুবিধা পেতে হলে ছাত্র-ছাত্রীদের সর্বনিম্ন দশম শ্রেণী পাস হতে হবে। এরপর ছাত্র-ছাত্রীরা যদি মনে করে উচ্চশিক্ষার জন্য টাকার সুবিধা প্রয়োজন তখন প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গুছিয়ে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের জন্য ইনস্টিটিউট যোগাযোগ করতে হবে।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  1. আধার কার্ড।
  2. মোবাইল নাম্বার ও ইমেইল আইডি থাকতে হবে।
  3. আবেদনকারীর মা বাবা এবং আবেদনকারীর নিজের রঙিন পাসপোর্ট ছবি লাগবে।
  4. প্যান কার্ডে না থাকলে নির্দিষ্ট ফর্ম্যাটে অঙ্গীকার পত্র লিখে দিতে হবে।
  5. আবেদনকারীর অভিভাবকের ঠিকানা প্রমাণ পত্র দিতে হবে।
  6. আবেদনকারী ও অভিভাবকের ব্যাংকের পাস বই প্রথম পেজের জেরক্স দিতে হবে।
  7. ব্যাংক বইয়ের ৬ মাসের স্টেটমেন্ট আবেদনপত্রের সঙ্গে দিতে হবে।
  8. আবেদনকারীর ভর্তির প্রমাণপত্র দিতে হবে।
  9. আবেদনকারীর যে ইনস্টিটিউট থেকে পড়াশোনা করছে তার কোর্সের সমস্ত নথিপত্র জমা করতে হবে।
  10. পরিবারের বার্ষিক আয় সার্টিফিকেট দিতে হবে।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের আবেদন প্রক্রিয়া

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের https://wbscc.wb.gov.in/ ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইন আবেদন করতে হবে। তারপর স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটি তে সমস্ত নথিপত্র জমা করার পর। ইনস্টিটিউট কর্তৃপক্ষ ভেরিফিকেশন করবে এবং ইনস্টিটিউটের সমস্ত কাজ কমপ্লিট হওয়ার পর আপনাকে জানানো হবে। এরপর আপনি যে ব্যাংক আবেদন করেছেন, সেই ব্যাংকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা করলে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা পাবেন।

স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের লোনের পরিমাণ

  • স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড থেকে সর্বাধিক ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন পাওয়া যাবে।
  • স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডে সুদের পরিমাণ সর্বনিম্ন চার শতাংশ।
  • লোন পরিশোধের সর্বাধিক সময় ১৫ বছর পর্যন্ত।
  • স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের থেকে লোন নেওয়ার পর সুদের পরিমাণ ৪ লক্ষ টাকার বেশি হলে আবেদনকারীকে সুদ দিতে হবে এবং ৪ লক্ষ টাকার কম হলে সরকার পরিশোধ করবে।