Swasthya Sathi Card New Update: স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধায় গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন, কার্ড থাকলে অবশ্যই জানতে হবে

পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হয়ে থাকলে অবশ্যই আপনার স্বাস্থ্য সাথী কার্ড (Swasthya Sathi Card) রয়েছে। যদি হ্যাঁ হয় তাহলে এই আপডেটটি (New Update) আপনার জানার দরকার। আজকের দিনে রাজ্যের সকল শ্রেনি এবং বয়সের লোকেরা স্বাস্থ্য সাথী কার্ড তথা প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছে। গত ৯ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাজ্যের স্বাস্থ্য ভবনের তরফ থেকে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ন একটি ঘোষনা করা হয়েছে।

2021 সালের রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক আসন নিয়ে মমতা ব্যানার্জি বাংলায় তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন। তারপর তিনি বাংলার প্রত্যেক নাগরিকদের বিনা পয়সায় চিকিৎসা জন্য স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর সুবিধা দেওয়া শুরু করেন। তখন থেকেই রাজ্যের প্রতিটি জনগণ তাদের বিভিন্ন অসুখের চিকিৎসার জন্য সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতাল থেকে বিনা পয়সায় চিকিৎসা করাতে পারছিলেন।

কিন্তু এখন থেকে এমন কিছু রোগের চিকিৎসা শুধুমাত্র রাজ্যের সরকারি হাসপাতাল থেকেই করাতে হবে। বেসরকারি হাসপাতাল থেকে ঐ সমস্ত রোগের চিকিৎসা করালে সরকার তার খরচ দেবে না। এমনটাই রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত করে জানানো হয়েছে।

Swasthya Sathi Card New Change Announced

কেন এই পরিবর্তন?

রাজ্য সরকারের মতে, রাজ্যের বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থা আগেকার থেকে অনেকটাই ভালো হয়েছে। তাই সিরিয়াস না এমন কিছু রোগের চিকিৎসা রাজ্যের বেসরকারি হাসপাতাল বা নার্সিং হোম থেকে করার কোনো মানেই হয় না। রাজ্যের স্বাস্থ্য ভবন বা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে এই কারনেই বেশ কিছু রোগের নাম উল্লেখ করে সেগুলি সুবিধা শুধুমাত্র সরকারি হাসপাতাল থেকেই নিতে বলা হয়েছে।

স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর মাধ্যমে চিকিৎসার সময় রোগীর চিকিৎসার প্রতি অনীহা এবং সঠিক চিকিৎসার নামে প্রতারণার মতো সমস্যা দেখে যাচ্ছে। এর আগে অনেকেই স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নিয়ে নানা সমস্যা বা অভিযোগ জানালেও তা নিয়ে তেমন কোনো পরিবর্তন নিয়ে আসেনি রাজ্য সরকার। যে নতুন নিয়ম আনা হয়েছে তাতে সরকারি পরিষেবা পুরোপুরি ব্যবহার হবে এবং বেসরকারি হাসপাতালের বিল বাবদ সরকারের খরচ কমবে।

পশ্চিমবঙ্গে গত কয়েক বছরে চিকিৎসা ব্যবস্থার  পরিকাঠামো উন্নতি হয়েছে বলে স্বাস্থ্য দপ্তর ঘোষণা করেছেন। সেখানে দেখা যাচ্ছে রাজ্যের বেশিরভাগ বেসরকারি হাসপাতালে হার্নিয়া বা হাইড্রোসিল অস্ত্রোপচার হচ্ছে। তাই সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে  প্রাণ সংশয় হওয়ার সম্ভাবনা কম হতে পারে এমন চিকিৎসা বেসরকারি হাসপাতাল থেকে না করে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করলে স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের সুবিধা সাধারণ মানুষ সহজে পেয়ে যাবেন।

স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের পরিষেবায় যেসমস্ত পরিবর্তন হলো

(1) হাইড্রোসিল, হার্নিয়া, দাঁতের রোগের চিকিৎসার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র সরকারি হাসপাতাল থেকেই চিকিৎসা করালে মিলবে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর সুবিধা।

এর আগে এই সমস্ত রোগের চিকিৎসা গুলি বেসরকারি হাসপাতালে করালেও স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধা পাওয়া যেত। এখন থেকে আর এই সুবিধা পাওয়া যাবে না। সরকারি হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা করালেই এই সমস্ত রোগের বিনামূল্যে চিকিৎসার সুবিধা গুলি রোগী পাবে। 

(2) স্বাস্থ্য দপ্তরের নতুন নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, ক্যান্সারের চিকিৎসা শুধুমাত্র রাজ্যের হাসপাতাল গুলিতেই করাতে হবে। অর্থাৎ সরকারি হাসপাতালে ক্যান্সারের চিকিৎসা করালেই রোগী স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধা পাবে। রাজ্য এবং রাজ্যের বাইরের বেসরকারি হাসপাতালে ক্যান্সারের চিকিৎসা করালে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর কোনো সুবিধা মিলবে না। 

(3) বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়েছে, শুধুমাত্র মুখের ক্যান্সারের চিকিৎসার ক্ষেত্রে বেসরকারি কোন হাসপাতালে চিকিৎসা করালে রোগী স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের বা প্রকল্পের সুবিধা পাবে। অর্থাৎ বেসরকারি হাসপাতালে রোগী তার মুখের ক্যান্সারের চিকিৎসা করালে স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধা পাবে।  

(4) এবার থেকে রাজ্যের জনগণ তাদের দাঁতের সমস্ত ধরনের চিকিৎসা শুধুমাত্র রাজ্যের হাসপাতাল গুলির থেকেই করতে পারবে এতে তারা স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধা পাবে। তবে দুর্ঘটনার কারণে দাঁতের সার্জারি করানোর প্রয়োজন হলে রোগী স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের মাধ্যমে বেসরকারি হাসপাতাল থেকে চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের সুবিধা পাবে।

👉 সরকারি প্রকল্প, সরকারি সুবিধার নতুন নতুন আপডেট মিস না করতে চাইলে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলে Join হয়ে থাকুন

🔥 আরো গুরুত্বপূর্ণ আপডেট 👇👇

👉 লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প- আবেদন পদ্ধতি

👉 স্বাস্থ্য সাথীর মতোই মোদি সরকারের নতুন প্রকল্প

👉 প্রধানমন্ত্রী কিষান ট্রাক্টর যোজনায়- টাকা দিচ্ছে সরকার